ব্যবসার আইডিয়া

ঘরোয়া ব্যবসা শুরু করার সেরা ১০ টি আইডিয়া

ঘরোয়া ব্যবসা শুরু করার সেরা ১০ টি আইডিয়া

বর্তমান সময়ে অনেকেই চান ঘরোয়া ব্যবসা করতে।কেননা ঘরোয়া ব্যবসা করার মাধ্যমে আপনি ঘরে থেকে সবকিছু করতে পারছেন। যার কারনে যারা নতুন উদ্যোক্তা হতে চান তাদের মধ্যে অনেকেই এখন ঘরোয়া ব্যবসা খুঁজে থাকে। আমি আজকের এই আর্টিকেলের এমন কয়েকটি ঘরোয়া ব্যবসা সম্পর্কে আপনাদের সাথে আলোচনা করব যে ব্যবসা গুলো আপনারা ঘরে বসেই করতে পারবেন এবং এতে লাভবান হওয়ার সম্ভাবনা অনেক বেশি। তাহলে চলুন প্রথমে জেনে নেওয়া যাক ঘরোয়া ব্যবসা কি সেই সম্পর্কেঃ

ঘরোয়া ব্যবসা কি 

 

ঘরোয়া ব্যবসা হচ্ছে এমন এক ধরনের ব্যবসা যা আপনি ঘরে বসে করতে পারবেন। সহজভাবে বলতে গেলে ঘরে বসে থেকে যে ব্যবসা গুলো করা হয়ে থাকে তাকে সাধারনত ঘরোয়া ব্যবসা বলা হয়। অর্থাৎ এই ব্যবসা করার জন্য আপনাকে দূর-দূরান্তে যেতে হয় না। তাহলে চলুন এবার জেনে নেওয়া যাক বর্তমান সময়ের সেরা কিছু ঘরোয়া ব্যবসা আইডিয়া সম্পর্কেঃ-

 

ঘরোয়া ব্যবসার সেরা দশটি আইডিয়া 

 

ঘরোয়া ব্যবসা সম্পর্কিত আজকের এই পোস্টে যে আইডিয়া গুলো দেওয়া হয়েছে এগুলো করে অনেকেই সফল হয়েছেন। তাই সঠিক ব্যবসা পদ্ধতি অবলম্বন করে যদি আপনারা এ ব্যবসাগুলো করেন তাহলে খুব সহজেই সফলতার মুখ দেখতে পারবেন।

১.আচার তৈরির ব্যবসা 

 

বর্তমান সময়ে আচারের ব্যবসা টি খুবই জনপ্রিয় হয়েছে।এই ব্যবসার সবচেয়ে বড় সুবিধা হচ্ছে এই ব্যবসাটি আপনি ঘরে বসেই করতে পারবেন।

আমাদের দেশে এমন অনেক আচার ব্যবসায়ী আছে যারা শুধুমাত্র ঘরে বসে বিভিন্ন ধরনের আচার তৈরি করে মাসে লক্ষাধিক টাকা আয় করে থাকে।

 

আচার তৈরি করার যাবতীয় সব উপকরণ ঘরে নিয়ে এসে সুন্দরভাবে আচার তৈরি করে আপনি সেই আচারগুলো বাজারজাতকরণ করতে পারেন এবং এখান থেকে আপনি ভালো পরিমাণে অর্থ উপার্জন করতে পারেন।

এই ব্যবসায় একবার যদি আপনার পরিচিতি গড়ে ওঠে তাহলে আর পিছনে ফিরে তাকানো লাগবে না। আপনি খুবই দ্রুততার সাথে একজন সফল ব্যবসায়ী হিসেবে নিজেকে আত্মপ্রকাশ করতে পারবেন। 

 

২.মোমবাতি তৈরির ব্যবসা 

 

ঘরোয়া ব্যবসার মধ্যে আপনারা মোমবাতি ব্যবসাটি কে টার্গেট করতে পারেন।আমাদের দেশে এমন অনেক ঘরোয়া ব্যবসায়ী রয়েছে যারা ঘরে বসে মোমবাতি তৈরি করে মাসে হাজার হাজার টাকা ইনকাম করে থাকেন।

 

আপনাকে এই জন্য শুধুমাত্র মোমবাতি কিভাবে তৈরি করে সেটা শিখতে হবে এবং মোমবাতি তৈরি করার যাবতীয় উপকরণ ঘরে নিয়ে এসে রাখতে হবে। তারপরে আপনি ক্ষুদ্র পরিসরে প্রথমদিকে মোমবাতি তৈরি শুরু করবেন এবং বেশকিছু দোকানদারের সাথে যোগাযোগ করে সেখানে আপনি মোমবাতির সাপ্লাই করবেন।

 

আপনি চাইলে এভাবে আস্তে আস্তে ব্যবসার পরিধি বাড়াতে পারে। সঠিকভাবে ব্যবসা পরিচালনা করার মাধ্যমে এখান থেকে ভালো কিছু করা সম্ভব। 

 

৩.কেক তৈরির ব্যবসা 

 

জন্মদিনে বা বিভিন্ন অনুষ্ঠানে কেকের অর্ডার দেওয়া হয়ে থাকে।তখন তারা অনেকেই ভালো ভালো বেকারী খুঁজে থাকেন যে সকল স্থানগুলোতে ভালো কেক তৈরি করে থাকে।

 

তাই আপনি চাইলে নিজেই কেক তৈরির এই কাজটি শিখতে পারেন এবং আপনার কাজের বিষয়ে আস্তে আস্তে পরিচিতি বাড়াতে পারেন।

 

আপনি যদি এই ক্ষেত্রে ভালো কেক কাস্টমারদের কে সরবরাহ দিতে পারেন তাহলে খুব দ্রুতই আপনার ব্যবসার জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি পাবে। বর্তমান সময়ে ঘরোয়া ব্যবসার মধ্যে এই ব্যবসাটি খুবই লাভজনক ব্যবসা।

৪.চুলের ব্যবসা 

 

আমাদের দেশে এমন অনেক ব্যবসায়ী রয়েছেন যারা চুলের ব্যবসা করার মাধ্যমে স্বাবলম্বী হয়েছেন। এই পদ্ধতিতে চুলের ব্যবসায়ীরা বিভিন্ন হকারদের কাছ থেকে চুল কিনে নিয়ে আসে এবং তাদের মিস্ত্রি দ্বারা সেই চুলগুলো কাঁচি এবং রেমি করে থাকেন।তাছাড়া অনেকে চুলের ক্যাপ তৈরি করার ব্যবসাটিও বর্তমানে করছেন।

 

আর এই ব্যবসার মাধ্যমে ভালো পরিমাণ অর্থ তারা খুব সহজেই উপার্জন করে নিচ্ছেন। তাই যদি চুলের ব্যবসা সম্পর্কে ধারনা না থাকে তাহলে আমাদের আগের এই আর্টিকেলটি দেখে আসতে পারেন।

চুলের ব্যবসা করার সবচেয়ে বড় সুবিধা হচ্ছে এই ব্যবসাটি আপনি ঘরে বসে করতে পারবেন এবং এখান থেকে আপনি ভালো পরিমাণে অর্থ উপার্জন করতে পারবেন খুব সহজেই।

৫.ফুলের বাগান তৈরি করে ব্যবসা 

 

ফুলের চাহিদা অতীতেও ছিল এবং বর্তমানেও ফুলের চাহিদা রয়েছে। তাই আপনার বাড়ির আশেপাশে যদি তেমন খালি জায়গা পড়ে থাকে তাহলে আপনি সেই স্থানগুলোতে ফুলের বাগান বা ফুলের চাষ করতে পারেন।

 

পরবর্তীতে আপনার ফুলের বাগান টি যখন বড় হয়ে যাবে এবং প্রচুর পরিমাণে ফুল হবে তখন এখান থেকে ফুল সংগ্রহ করে নিয়ে দোকানে বিক্রি করতে পারেন।

 

সঠিক পদ্ধতিতে যদি এই ব্যবসাটি করতে পারেন তাহলে খুব অল্পসময়ের মধ্যেই এই ব্যবসায় আপনি সফলতা পাবেন। তাই যদি ঘরোয়া ব্যবসা করবেন বলে ঠিক করে থাকেন তাহলে এই ব্যবসাটি শুরু করতে পারেন

৬.বাড়িতে কোচিং সেন্টার খুলে ব্যবসা

 

আপনি যদি কোন নির্দিষ্ট বিষয়ে দক্ষ হয়ে থাকেন তাহলে সেই বিষয়টি নিয়ে আপনি বাড়িতে একটি কোচিং সেন্টার খুলতে পারেন।

 

আপনার বিষয়ের সাথে সম্পৃক্ত কিছু ছাত্র-ছাত্রীদেরকে আপনি নির্দিষ্ট পরিমাণ ফি নিয়ে আপনার কোচিং সেন্টারে ভর্তি নিবেন।

 

এভাবে যত বেশি ছাত্রছাত্রীকে আপনি কোচিং সেন্টারে ভর্তি করাতে পারবেন আপনার উপার্জনের পরিমাণটা তত বেশি বাড়বে। বর্তমানে অনেকেই এই পদ্ধতি অনুসরণ করে শুধুমাত্র ঘরে বসেই হাজার হাজার টাকা ইনকাম করছে।

 

৭.ইউটিউব চ্যানেল খুলতে পারেন 

 

আপনি যে বিষয়টা সম্পর্কে সবচেয়ে ভালো বুঝেন বা যে জিনিসটা আপনার করতে ভালো লাগে আপনি সেই রিলেটেড একটি ইউটিউব চ্যানেল খুলতে পারেন।

 

তারপরে আপনি সেখানে নিয়মিত ভালো ভালো ভিডিও পাবলিশ করতে থাকেন।আপনার পাবলিশ করা ভিডিও গুলো যদি খুবই ভালো মানের হয় অর্থাৎ সেগুলো যদি মানুষের উপকারে আসে তাহলে ধীরে ধীরে মানুষ আপনার চ্যানেলে আসবে এবং আপনার ভিডিও গুলো দেখবে।

 

এইভাবে আপনার চ্যানেল টি একসময় অনেক বড় হয়ে যাবে এবং তখন আপনি চাইলে এখান থেকে বিভিন্ন পদ্ধতি অবলম্বন করে উপার্জন করতে পারবেন।

৮.মেসো অ্যাপ থেকে ইনকাম 

 

মেসো এক মূলত প্রোডাক্ট রেসলিং করে টাকা ইনকাম করার জন্য ব্যবহৃত একটি অ্যাপ। এই আ্যাপে আপনি হাজার হাজার লাখ লাখ প্রোডাক্ট পেয়ে যাবেন।

 

প্রথমত আপনাকে মেসো অ্যাপ এ একাউন্ট তৈরী করতে হবে এবং সেখান থেকে প্রোডাক্টের লিংক জেনারেট করে সেই প্রোডাক্টগুলো ফেসবুক পেজ ওয়েবসাইট অথবা ইউটিউব চ্যানেলের মাধ্যমে বিক্রি করে দিতে হবে।

 

আপনি চাইলে যে কোন মাধ্যম ব্যবহার করে প্রোডাক্ট বিক্রি করতে পারেন। আপনার বিক্রিকৃত  প্রোডাক্ট থেকে যত পরিমাণ লাভ হবে সেখান থেকে নির্দিষ্ট পরিমাণ কমিশন আপনাকে তারা দিবে।

 

আপনি এখানে যত বেশী প্রোডাক্ট বিক্রি করতে পারবেন আপনার উপার্জনের পরিমাণটা তত বেশি হবে। অনেকে এটাকে ঘরোয়া ব্যবসার সাথে তুলনা করে থাকে।

৯.ঘরোয়া খাবারের ব্যবসা

 

সময়ের সাথে সাথে মানুষ যেন এখন অনেক কর্মব্যস্ত হয়ে যাচ্ছে। বিশেষ করে শহর অঞ্চলের মানুষের এতটাই কর্মব্যস্ততা যে তারা নিজের খাবার তৈরি করে খাবার সময়টুকু পায় না।

 

তাই তারা অনেকের বাসা থেকে সরাসরি খাবার হোম ডেলিভারি করে দিতে বলে। তাই আপনি চাইলে ঘরোয়া খাবারের ব্যবসাটি শুরু করতে পারেন। এই ক্ষেত্রে শুধুমাত্র আপনাকে কয়েকজন লোককে টার্গেট করতে হবে এবং তাদের জন্য বাড়িতে খাবার বানিয়ে খাবার ডেলিভারি দিয়ে আসতে হবে।

 

আপনি নিজে যদি এই কাজটি না করতে পারেন তাহলে একজন বাবুর্চি নিয়োগ দিতে পারেন এবং তাকে দিয়ে কাজটি করাতে পারেন। এভাবে যত বেশি লোককে আপনি খাবার ডেলিভারি দিতে পারবেন আপনার আয়ের পরিমাণ টা কিন্তু ঠিক ততটাই বেশি বৃদ্ধি পাবে

১০.ছাদ কৃষি বা নার্সারী 

 

আমাদের দেশে ছাদকৃষি এখন তুমুল জনপ্রিয় একটি ব্যবসা। আপনি চাইলে আপনার বাড়ির ছাদে বিভিন্ন ধরনের গাছ লাগিয়ে সেগুলো অনলাইনের মাধ্যমে অনেক দামে বিক্রি করতে পারেন। বর্তমানে শহর অঞ্চলের অনেকেই এই পদ্ধতিটি অবলম্বন করে ভালো অর্থ উপার্জন করছে।

 

তাই যদি সঠিক পদ্ধতিতে আপনি ছাদ কৃষি নার্সারী করতে পারেন তাহলে খুব সহজেই এখান থেকে ভালো পরিমাণে উপার্জন করা সম্ভব।

 

আমাদের শেষ কথা 

 

আজকের আর্টিকেল এর মাধ্যমে আমি আপনাদেরকে সেরা কয়েকটি ঘরোয়া ব্যবসা আইডিয়া দিতে চেয়েছি। আপনারা চাইলে এই ব্যবসা গুলো ঘরে বসেই করতে পারবেন এবং এখান থেকে ভালো পরিমাণে উপার্জন করতে পারবেন। আর ব্যবসা সম্পর্কিত কোনো বিষয়ে যদি কিছু জানার থাকে তাহলে আমাদেরকে সরাসরি কমেন্ট করে জানাতে পারেন। 

সম্পর্কিত আর্টিকেল

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Back to top button