ভিসা খবর

সৌদি আরবে কাজে যাওয়ার জন্য কোন ভিসা ভালো হবে?

সৌদি আরবে যারা কাজের উদ্দেশ্যে যেতে চান তাদের প্রথম প্রশ্ন হচ্ছে সৌদি আরবে কোন ভিসা ভালো। সৌদি আরবে কাজে যেতে হলে আপনাকে যেকোনো একটি ক্যাটাগরির ভিসা নিয়ে তারপর যেতে হবে। সৌদি আরবে কাজের জন্য কয়েক ধরনের ভিসা দেওয়া হয়ে থাকে।এই ভিসা গুলোর মধ্যে কোন ভিসা গুলি ভালো হবে বা সৌদি আরবে কোন ভিসা নিয়ে গেলে ভালো বেতন পাবেন ও সেখানে ভালো সুযোগ-সুবিধা পাবেন এই নিয়েই থাকছে আজকের পোস্টটি। 

 

সৌদি আরব কোন ভিসা ভালো 

 

সৌদি আরব খুবই সুন্দর একটি দেশ। তাছাড়া সৌদি আরবে কাজের সুযোগ-সুবিধা ইউরোপের অন্যান্য দেশগুলোর তুলনায় ভালো হওয়ায় এবং কম খরচে সৌদি আরবে যেতে পারায় অনেকেই এই দেশটিতে যাওয়ার জন্য আগ্রহী। 

 

তাছাড়া সৌদি আরবে প্রচুর বাংলাদেশী রয়েছে যার কারণে অনেকেই সৌদিতে যায়। সৌদি আরবে যাওয়ার আগে ভিসার ক্যাটাগরি সম্পর্কে জেনে নিতে হবে এবং কোন ভিসাটি আপনার জন্য ভালো হবে এটাও জানতে হবে। 

১.সৌদি আমেল মঞ্জিল ভিসা 

২. সৌদি আরব সুপার মার্কেট ভিসা 

৩. সৌদি আরব ক্লিনার ভিসা 

৪. সৌদি আরব আমেল আইদি ভিসা 

৫.সৌদি আরব মাজরার ভিসা

কাজের উদ্দেশ্যে যারা সৌদি আরব যেতে চান তারা বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই এই ভিসাগুলো ব্যবহার করে থাকেন। এবার এই ভিসাগুলো সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নেওয়া যাক। 

সৌদি আমেল আইদি ভিসা 

 

সৌদি আমেল আইদি ভিসার মাধ্যমে যারা সৌদি আরব যায় তাদেরকে একজন কফিলের আন্ডারে যেতে হয়। তারপরে আপনি তার অনুমতি নিয়ে সৌদি আরবে গিয়ে যেকোনো কাজ করে টাকা ইনকাম করতে পারবেন। এই ভিসাকে আমরা অনেকেই ফ্রি ভিসা হিসাবেও চিনে থাকি। তবে এই ভিসার মাধ্যমে যারা কাজ করে থাকেন তাদেরকে কফিলের জন্য নির্দিষ্ট পরিমাণ রিয়াল প্রদান করা লাগে।

 

যারা কোন কাজে অনেক বেশি অভিজ্ঞ বা দক্ষতা সম্পন্ন ব্যক্তি তারা সৌদি আরবে আমেল আইদি ভিসার মাধ্যমে প্রতিমাসে লক্ষ টাকার উপরে আয় করতে পারবেন। 

 

সৌদি আরব মাজরার ভিসা 

 

সৌদি আরব মাজরার ভিসাটি ও অনেক ভালো। যারা আরব মাজরার ভিসায় সৌদি আরব যায় তাদেরকে সাধারণত ফলের বাগানে কাজ করতে হয়। এই ভিসায় সৌদি আরব যেতে তিন থেকে চার লক্ষ টাকার মতো খরচ হয়ে থাকে। এই ভিসায় যারা যায় তারা অনেক বেশি বেতন পেয়ে থাকেন এবং এখানে শুধুমাত্র দক্ষতা সম্পন্ন কর্মীদের নিয়োগ দেওয়া হয়। ভালো দক্ষতা সম্পন্ন একজন কর্মী এই ভিসার মাধ্যমে গিয়ে প্রতিমাসে ১০০০ রিয়ালের ওপর আয় করতে পারেন।

 

সৌদি আরব সুপারমার্কেট ভিসা 

 

যারা আকামা ও কপিলের সমস্যা থেকে নিজেদেরকে দূরে রাখতে চান তারা চাইলে সৌদি আরব সুপারমার্কেট ভিসা করতে পারেন। সৌদি আরব সুপার মারকেট ভিসা করার মাধ্যমে সেখানে গিয়ে অনেক ধরনের সুযোগ-সুবিধা পাবেন। সৌদি আরব সুপারমার্কেট ভিসার মাধ্যমে আপনি সেখানে সুপার মার্কেটে গিয়ে কাজ করতে পারবেন। তবে সৌদিতে সুপার মার্কেট ভিসা করার জন্য বয়সসীমা অবশ্যই ২১ বছর থেকে ৪০ বছরের মধ্যে হতে হবে। সৌদি আরবে সুপারমার্কেট ভিসায় থাকা খাওয়ার সুবিধা অনেক ভালো এবং এই ভিসায় কাজ করে প্রতি মাসে ১০০০ থেকে ১৫০০ রিয়াল পর্যন্ত আয় করা সম্ভব। 

 

সৌদি আরব ক্লিনার ভিসা 

 

সৌদি আরবে ক্লিনার ভিসা করার মাধ্যমে পরিচ্ছন্নতা কর্মী হিসেবে কাজ করতে হয়। সৌদি আরবে ক্লিনার ভিসায় যেতে ৩.৫০ লক্ষ্য থেকে চার লক্ষ টাকার মত খরচ হয়ে থাকে। এই ভিসাটির মাধ্যমে সৌদিতে নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত থেকে কাজ করতে পারবেন। যাদের কোন ধরনের কাজের দক্ষতা নেই তাদের জন্য এই ভিসাটি খুবই অসাধারণ হতে পারে। সৌদি আরবে ক্লিনার ভিসায় যাওয়ার মাধ্যমে বিভিন্ন সুপারমার্কেটে পরিছন্নতা কর্মী হিসেবে কাজ, রাস্তায় পরিচ্ছন্নতা কর্মী হিসেবে কাজ ও অন্যান্য স্থানে কাজ পেতে পারেন। সৌদি আরবে ক্লিনার ভিসায় যারা কাজ করে থাকেন তারা অনেকেই প্রতি মাসে ১০০০ রিয়ালের উপরে ইনকাম করে থাকেন। 

 

সৌদি আমেল মঞ্জিল ভিসা 

 

সৌদি আমেল বা মনজিল হিসাবে যারা যান তারা সাধারণত সৌদিতে বাসা বাড়ির কাজ করে থাকেন। অর্থাৎ এর জন্য আপনাদেরকে যেকোনো একটি মালিকের ধরে সৌদি আরব যেতে হবে এবং সেই মালিকের অধীনে বাসাবাড়িসহ অন্যান্য কাজ আপনি করতে পারবেন। পুরুষরা সৌদি আমিল মঞ্জিল ভিসায় গিয়ে দারোয়ান ও পরিছন্নতা কর্মী হিসেবে কাজ করে থাকেন এবং নারীরা বাসা বাড়ির বিভিন্ন কাজ করে থাকেন। সৌদি আমিল মঞ্জিল ভিসাতে বেতন ভালো হলেও প্রতিবছর ভিসা রিনু করার জন্য এক লাখ টাকার উপরে খরচ হয়ে থাকে। 

 

কোন ভিসার মাধ্যমে সৌদি আরব গেলে ভালো হবে?

 

উপরে যে ভিসাগুলো দেওয়া হয়েছে এর মধ্য থেকে যেকোনো ভিসা ব্যবহার করে আপনারা চাইলে সৌদি আরব যেতে পারবেন। তবে সৌদিতে গিয়ে অল্প সময়ে ভালো ইনকাম যদি করতে হয় তাহলে সৌদি আরবে সুপারমার্কেট ভিসায় যেতে পারেন। সুপারমার্কেট ভিসায় গেলে বোনাস সহ অনেক সুযোগ-সুবিধা পাবেন। 

 

তবে সৌদি আমেল আইদি ভিসা ব্যবহার করে যদি যান তাহলে সেখানে অনেক টাকা আয় করতে পারবেন কিন্তু কপিল ও আকামার জন্য বাড়তি অর্থ দেওয়া লাগে। যা সাধারণত অনেকের পক্ষে দেওয়া সম্ভব হয়ে ওঠে না। এটাকে আমরা অনেকেই ফ্রি ভিসা হিসেবে চিনে থাকি। এই ভিসার মাধ্যমে যদি সৌদিতে যান তাহলে যেকোনো স্থানে কাজ করতে পারবেন।

 

তাই যারা সৌদি আরব যাওয়ার জন্য ইতিমধ্যে প্রস্তুতি নিচ্ছেন কিন্তু কোন অভিজ্ঞতা নেই তারা সুপার মার্কেট ভিসাই সৌদিআরব যেতে পারেন। সৌদি আরবে যদি দীর্ঘদিন এই ভিষার মাধ্যমে থাকতে পারেন তাহলে প্রতি মাসে ২০০০ রিয়াল আয় করতে পারবেন। আর যদি অভিজ্ঞতা সম্পূর্ণ কর্মী হয়ে থাকেন তাহলে সৌদি আরবে ফ্রি ভিসাতে গিয়ে কনস্ট্রাকশন ও অন্যান্য কাজ করতে পারেন। 

 

উপসংহার: আশা করি ইতিমধ্যে সৌদি আরব কোন ভিসা ভালো বা কোন ভাষার মাধ্যমে সৌদি আরব যাবেন এই বিষয়ে পরিপূর্ণ ধারণা পেয়ে গিয়েছেন। তারপরেও যদি সৌদি ভিসা সম্পর্কিত বিষয়ে কোনো ধরনের প্রশ্ন থাকে তাহলে অবশ্যই কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে পারেন। ধন্যবাদ। 

সম্পর্কিত আর্টিকেল

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Back to top button