ভিসা খবর

নেদারল্যান্ড কাজের ভিসা পাওয়ার উপায়

 

নেদারল্যান্ড কাজের ভিসা- নেদারল্যান্ডস হলো ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত একটি দেশ। নেদারল্যান্ড কাজের ভিসা অনেকেই পেতে চায়। এর অনেকগুলো কারন রয়েছে৷ যেহেতু এটি একটি ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত দেশ। সেক্ষেত্রে যে কেউ চাইলে নেদারল্যান্ডস থেকে খুব সহিজে বাকি সেনজেনভুক্ত দেশগুলোতে অতি সহজেই প্রবেশ কর‍তে পারবে। কর্মের উদ্দেশ্যে প্রবাসে পারি জমানোর জন্য সবার পছন্দের তালিকায় ইউরোপের দেশগুলোই থাকে। নেদারল্যান্ডসও অনেকের পছন্দের তালিকায় প্রথমেই অবস্থান করেন। নেদারল্যান্ডস কাজের ভিসা নিয়ে অনেকেই আসতে চাওয়ার কারন হলো এর সুন্দর পরিবেশ, কাজের চাহিদা ও অর্থের মান বেশ ভালো। তাছাড়া উচ্চশিক্ষা অর্জনের জন্য নেদারল্যান্ডস অনেক শিক্ষার্থীর পছন্দের তালিকায় সেরা অবিস্থানে রয়েছে। যারা নেদারল্যান্ডস কাজের ভিসা কিংবা স্টুডেন্ট ভিসা নিয়ে যেতে চাচ্ছেন আশা করি আজকের আর্টিকেলটি আপনাদের কাজে আসবে।কারন আজকের আর্টিকেলে আলোচন করব নেদারল্যান্ডস কাজের ভিসা, নেদারল্যান্ডস স্টুডেন্ট ভিসা, নেদারল্যান্ডস টুরিস্ট ভিসা, নেদারল্যান্ডস স্টুডেন্ট ভিসার খরচ ইত্যাদি যাবতীয় বিষয়গুলো সম্পর্কে। তো চলুন শুয়করা যাক। 

নেদারল্যান্ডস স্টুডেন্ট ভিসা 

 

ইউরোপের দেশগুলোতে উচ্চ শিক্ষা অর্জন করা একসময় যেন ছিল স্বপ্নের মত। কিন্তু বর্তমানে পূরণ করা অনেক খানি সহজ হয়ে গিয়েছে। বাংলাদেশ থেকে অনেক শিক্ষার্থী উচ্চশিক্ষা অর্জনের জন্য ইউরোপের বিভিন্ন দেশে যেতে চায়। তবে এর সামনের দিকে এগিয়ে রয়েছে নেদারল্যান্ডস। দেশটির আবহাওয়া, পড়াশুনার পাশাপাশি পার্ট টাইম জব,পড়াশুনা শেষ করে ভালো ক্যারিয়ার ইত্যাদি নানা কারণে এ দেশটি উচ্চশিক্ষা অর্জনের জন্য অনেকের কাছেই পছন্দের। 

 

এখন প্রশ্ন হল নেদারল্যান্ডস স্টুডেন্ট ভিসা কিভাবে পাওয়া যাবে? সিজিপিএ কত লাগবে? কিভাবে আবেদন করবে? এ প্রশ্নগুলো অনেকের মনেই ঘুরপাক খায়। মুলত নেদারল্যান্ডসের বিশ্ববিদ্যালয় গুলোতে পড়তে আগ্রহী শিক্ষার্থীদের জন্য কিছু কোর্স অফার করে। যেমন ব্যাচলরস্ প্রোগ্রাম, মাস্টার্স প্রোগ্রাম, পিএচডি প্রোগ্রাম,ডিপ্লোমা প্রোগ্রাম ইত্যাদি। এখন এখানে যদি কেউ ব্যাচলরস্ প্রোগ্রাম কোর্সে স্টুডেন্ট ভিসা নিয়ে আসতে চায় তবে অবশ্যই তাকে এসএসসি ও এইচএচসি মিলিয়ে ৩.৫০ এর মত সিজিপিএ থাকতে হবে। এবং প্রত্যেকটি কোর্সের জন্য অবশ্যই IELTS কোর্স করতে হবে। এবং IELTS স্কর নুন্যতন ৫.৫ থেকে ৬ হতে হবে। আবেদনের জন্য আপনারা চাইলে আপনাদের নেদারল্যান্ডসে স্টুডেন্ট ভিসা নিয়ে কেউ গিয়েছে এমন কোন পরিচিত কারো সাহায্য নিয়ে এপ্লাই করতে পারেন। অথবা চাইলে কোন এজেন্সির সাথে যোগাযোগ করতে পারেন যারা নেদারল্যান্ডস স্টুডেন্ট ভিসা নিয়ে কাজ করেন। তাদের মাধ্যমেও আবেদন করতে পারেন। সেক্ষেত্রে আপনি নেদারল্যান্ডসের কোন বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়তে চাচ্ছেন সেটি নির্ধারন করে আবেদন করতে পারেন। আবেদনের জন্য আপনার প্রয়োজন হবে নিজস্ব একটি বৈধ পাসপোর্ট, সকল সার্টিফিকেট, ছবি। সাধারণত এই কাগজপত্র গুলো প্রাথমিক অবস্থায় আবশ্যক। বিশ্ববিদ্যালয়ের দেওয়া সকল শর্ত পূরণ হলে আপনি সেখানে স্টুডেন্ট ভিসা নিয়ে যেতে পারবেন। 

 

নেদারল্যান্ডস স্টুডেন্ট ভিসার খরচ 

 

এখানে বিশ্ববিদ্যালয়গুলো একেকটি কোর্সের একেক রকম টিউশন ফি নির্ধারন করে থাকে। তবে সাধারনত ভিসা ফি, টিউশন ফি, ভিসা প্রসেসিং ইত্যাদি যাবতীয় খরচ বাবদ দশ থেকে পনেরো লাখ টাকার মত খরচ হতে পারে। 

 

নেদারল্যান্ডস কাজের ভিসা

 

নেদারল্যান্ডস একটি ইউরোপের দেশ হওয়ায় বরাবরই কাজের জন্য এ দেশটি প্রবাসগামী লোকদের কাছে খুবই পছন্দের একটি দেশ। নেদারল্যান্ড কাজের ভিসা নিয়ে যারা এ দেশটিতে আসতে চান তারা চাইলে অনেকগুলো ক্যাটাগরিতে কাজ করতে পারবে এবং সে সকল ক্যাটাগরিতে ভিসা নিয়ে আসতে পারবে।আসলে নেদারল্যান্ড চেয়ে অনেক ক্ষেত্রে  কাজের সুযোগ রয়েছে। এখানে কাজের চাহিদা মোটামুটি বেশ ভালোই। ফুড প্যাকেজিং, কনস্ট্রাকশন সাইটের বিভিন্ন কাজ যেমন ফ্লামবার, প্লাস্টার, পেইন্টিং আরও আছে ড্রাইভিং ও রেস্তোরাঁর কাজ ইত্যাদি। আপনি চাইলে এর যেকোনো একটি কাজের ভিসা নিয়ে নেদারল্যান্ডস আসতে পারবেন। এমন এই কাজগুলোর চাহিদা কিন্তু মোটামোটি বেশ ভালো। এসব বিভিন্ন কাজের ক্ষেত্র বিশেষ বেতনও একেক রকম হয়ে থাকে। যেসকল কোম্পানিগুলো এসব কাজের জন্য বিভিন্ন দেশথেকে জনবল নিয়োগ দিয়ে থাকে, সাধারণত সেই সব কোম্পানিগুলো একটি বেতন নির্ধারন করে থাকে। সেক্ষেত্রে ধরা যেতে পারে ৬০০ থেকে ১০০০ ইউরো অর্থাৎ বাংলাদেশী টাকায় ৬০ হাজার থেকে ১ লাখ টাকার মত বেতন হতে পারে। থাকা খাওয়ার বিষয়টি কোম্পানিভেদে ভিন্ন হতে পারে। কোন কোন কোম্পানির অধীনে কর্মীর থাকা ও খাওয়ার ব্যবস্থা থাকে। আবার কখনো দেখা যায় শুধু থাকার খরচ বহন করছে৷

 

 আপনারা কিভাবে নেদারল্যান্ডস কাজের ভিসা গুলো পেতে পারেন। সেক্ষেত্রে  বাংলাদেশের সরকারি এজেন্সি বোয়েসেলের মাধ্যমে নেদারল্যান্ডসের কর্মী নিয়োগের বিভিন্ন বিজ্ঞপ্তি গুলো পেতে পারেন। তারা সাধারণত বিভিন্ন দেশের কর্মী নিয়োগ সংক্রান্ত বিজ্ঞপ্তিগুলো প্রকাশ করে থাকে। নেদারল্যান্ডস কাজের ভিসা পেতে 

 

বোয়েসেল লিংক:http://www.boesl.gov.bd/

 

আপনারা চাইলে সেখান থেকে বিভিন্ন কোম্পানির কর্মী নিয়োগের বিজ্ঞপ্তিগুলো দেখে আবেদন করতে পারবেন। তাছাড়া নেদারল্যান্ডস কাজের ভিসা পেতে নেদারল্যান্ডসে অবস্থান করে আপনাদের এমন কোন পরিচিত কেউ থেকে থাকলে তাদের মাধ্যমেও ভিসা পেতে পারেন। এবং তাদের মাধ্যমে আবেদন করে যেতে পারেন।তাছাড়া বাংলাদেশে কিছু প্রাইভেট এজেন্সি আছে যারা নেদারল্যান্ডস ওয়ার্ক পারমিট ভিসা নিয়ে কাজ করেন। চাইলে সেসকল এজেন্সির মাধ্যমেও আপনারা ওয়ার্ক পারমিট ভিসা নিয়ে সেখানে যেতে পারেন।

 

এখন আপনি নেদারল্যান্ডস কাজের ভিসা পেতে হলে অনেক সময়  কিছু শর্ত পূরন করতে হয়৷ যেমন কেউ যদি কোন রেস্তোরাঁয় শেফের কাজে যায় তবে তাকে অবশ্যই এই কাজের উপর পূর্ব অভিজ্ঞতা দেখানো লাগে। ড্রাইভিং ভিসা পেতে হলে অবশ্যই সে দেশী ড্রাইভিং লাইসেন্স প্রয়োজন। তাছাড়া বৈধ পাসপোর্ট, ছবি, কাজ বুঝে একাডেমিক সনদপত্র, মেডিকেল সার্টিফিকেট ইত্যাদি বেশ কিছু কাগজের প্রয়োজন হয়। কোম্পানি গুলোর জব অফার লেটারে দেওয়া সকল শর্ত যদি আপনি পূরন করতে পারেন তবে অবশ্যই খুব সহজে নেদারল্যান্ডস কাজের ভিসা আপনি পেয়ে যাবেন।

 

এখন আরেকটি প্রশ্ন হলো যেতে কত টাকা প্রয়োজন? নেদারল্যান্ডস কাজের ভিসা নিয়ে সরকারি ভাবে যেতে হলে ভিসা খরচ,মেডিকেল, এজেন্সি খরচ বাবদ সাধারণত ২- ৩ লাখ টাকার মত লাগতে পারে।কারন কাজের ক্যাটাগরিভেদে খরচের পরিমাণও ভিন্ন ভিন্ন হয়। আবার কেউ যদি বেসরকারি এজেন্সির মাধ্যমে যায় তবে ভিসার খরচ, ভিসা প্রসেসিনং ইত্যাদি যাবতীয় খ্রচ মিলে সাত লাখ থেকে নয় লাখ টাকার মত লাগতে পারে। তবে সাবধান! দালাল চক্রের ফাঁদে পড়লে পনেরো থেকে বিশ লাখ টাকা তারা আপনার কাছ থেকে হাঁতিয়ে নিতে পারে। তাই অবশ্যই দালালের হাত থেকে সাবধান থাকবেন। এবং চেষ্টা করবেন বৈধ উপায়ে নেদারল্যান্ডস কাজের ভিসা নিয়ে সেখানে যেতে। 

 

নেদারল্যান্ডস টুরিস্ট ভিসা 

 

নেদারল্যান্ডস একটি সুন্দরতম দেশ। এদেশের পরিবেশ আবহাওয়া বেশ চমৎকার। বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে মানুষ এখানে সৌন্দর্য উপভোগ করার জন্য ঘুরতে আসে। ইউরোপের যতগুলো টুরিজম কান্ট্রি রয়েছে তার মধ্যে নেদারল্যান্ডস অন্যতম একটি। আপনি চাইলে এদেশে টুরিস্ট ভিসা নিয়ে আসতে পারেন। ৯০ দিনের টুরিস্ট ভিসা নিয়ে নেদারল্যান্ডসে আসতে হলে আপনাকে ঢাকাস্থ নেদারল্যান্ডস  দুতাবাসে যোগাযোগ করতে হবে। আপনি চাইলে বিভিন্ন ট্রাভেল এজেন্সির সাথেও যোগাযোগ করে আসতে পারেন। সেক্ষেত্রে আপনার প্রয়োজন হবে-

 

  • পাসপোর্ট 
  • ছবি
  • ভ্রমণের সময় যে  হোটেল উঠবেন সেখানকার রিজার্ভেশনের প্রমাণ
  • যখনই ভ্রমণ করবেন তখনকার ৩ টি সাম্প্রতিক ব্যাংক স্টেটমেন্ট ।
  • চাকুরীজীবীদের জন্য ছুটি দেয়া হয়েছে এই মর্মে ঘোষণাপত্র। 

 

তাছাড়া মেডিকেল প্রমানপত্র, বাচ্চা সাথে নিয়ে গেলে তাদের প্রয়োজনীয় কাগজপত্র ইত্যাদি। 

 

সর্বশেষ কিছু কথা 

 

অনেকে সময় নেদারল্যান্ডসের বিভিন্ন কোম্পানি সিজনাল ভিসায় লোক নিয়োগ দিয়ে থাকে। সেক্ষেত্রে ভিসার মেয়াদ থাকে ছয় মাস থেকে এক বছরের মত। এরপর ভিসার মেয়াদ শেষ হয়ে গেলে সেখানে অবস্থানকারী প্রবাসীরা অবৈধ হয়ে পরে। 

 

এরকম অনেক ভুঁয়া দালাল চক্র ও প্রাইভেট এজেন্সি আছে যারা নন সিজনাল ভিসার নাম করে সিজনাল ভিসা দিয়ে কর্মীদের কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নেয়। তাই এদের থেকে দূরে থাকাই ।নেদারল্যান্ড কাজের ভিসা সংক্রান্ত যেকোনো তথ্য পেতে সরকারি এজেন্সি গুলোর বিভিন্ন পেজ বা ওয়েবসাইটগুলোতে  চোখ রাখবেন। এতে খুব সহজেই আপনি সঠিক তথ্য পেয়ে যাবেন।

সম্পর্কিত আর্টিকেল

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Back to top button